যথাযোগ্য মর্যাদায় বশেফমুবিপ্রবিতে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন

বশেফমুবিপ্রবি, ১৭ মার্চ ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার।।
যথাযোগ্য মর্যাদায় জামালপুরে প্রতিষ্ঠিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বিবিদ্যালয়ে (বশেফমুবিপ্রবি) সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) সকাল ১০টায় ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়।
পরে মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ-এর নেতৃত্বে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
এ সময় ট্রেজারার জনাব মোহাম্মদ আবদুল মাননান, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সুশান্ত ভট্টাচার্য, রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) খান মো. অলিয়ার রহমান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর এসএমএ হুরাইরা, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক কর্নেল (অব.) কাজী শরীফ উদ্দিন, ছয়টি বিভাগের চেয়ারম্যানসহ শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
পরে বঙ্গন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে শুরু হয়ে জামালপুর-দেওয়ানগঞ্জ সড়কে বশেফমুবিপ্রবির প্রধান গেট প্রদক্ষিণ ফের প্রশাসনিক ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়।
পরে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি প্রফেসর ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক এবং অভিন্ন সত্তা। তাই বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু মানে স্বাধীনতা।
‘আমরা চাই আমাদের শিক্ষার্থীরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দক্ষ ও মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে উঠুক। যারা ভবিষ্যতে নেতৃত্ব দেবে। এ বিষয়টি লক্ষ্য রেখেই জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে বিশ্ববিদ্যালয়ে সমৃদ্ধ বঙ্গবন্ধু কর্নার প্রতিষ্ঠাসহ নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’
তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে স্বপ্ন নিয়ে দেশকে স্বাধীন করেছিলেন, তাঁর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সে স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা কাজ করে যাবো- এটাই বঙ্গবন্ধুর ১০৩তম জন্মদিনে আমাদের অঙ্গীকার হোক।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য, আওয়ামী লীগ জামালপুর জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ, জামালপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী, মেলান্দহ উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মো. কামরুজ্জামান, মেলান্দহ পৌরসভার মেয়র শফিক জাহেদী রবিন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী দিদার পাশা, মেলান্দহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ও সাধারণ সম্পাদক মো. জিন্নাহ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার খান মো. অলিয়ার রহমান প্রমুখ বক্তব্য দেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার জনাব মোহাম্মদ আবদুল মাননানের সভাপতিত্বে সভায় সমাজকর্ম বিভাগের চেয়ারম্যান ড. এ এইচ এম মাহবুবুর রহমান, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মাহমুদুল আলম, গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মুহম্মদ শাহজালাল, ফিশারিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আব্দুস ছাত্তার, ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়াররম্যান মো. রাশিদুল ইসলাম, মির্জা আজম হলের তত্ত্বাবধায়ক ড. মোহাম্মদ সাদীকুর রহমান ও নূরুন্নাহার বেগম হলের তত্ত্বাবধায়ক ড. মুহাম্মদ ফরহাদ আলী, সহকারী অধ্যাপক ড. সৈয়দ নাজমুল হুদা, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মির্জা মো. আব্দুল হালিম এবং মো. মনিরুজ্জামান প্রমুখ বক্তব্য দেন।
এদিকে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে স্থানীয় মসজিদ ও প্রার্থনালয়ে দোয়া এবং মোনাজাতের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে বিকেলে থাকছে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।